একনজরে বিন্দুবাসিনী স্কুল

 প্রচ্ছদ / একনজরে বিন্দুবাসিনী স্কুল

অবস্থান: 

টাঙ্গাইল শহরের প্রাণকেন্দ্র, টাঙ্গাইল পৌরসভার ৪ নং দিঘুলিয়া ওয়ার্ডের পার দিঘুলিয়া মৌজায় অবস্থিত। পূর্বে জেলা সদর রোড, নিরালা মোড়, পৌরসভা ভবন, সোনালি ব্যাংক লিমিটেড, প্রধান শাখা, শহীদ মিনার, পশ্চিমে স্ট্যান্ড রোড ও মডেল প্রাইমারী স্কুল, দক্ষিণে পার্ক বাজার রোড এবং উত্তরে স্টেডিয়াম রোড।

প্রতিষ্ঠাকাল: ০৩ এপ্রিল, ১৮৮০ খ্রিস্টাব্দ        

জাতীয়করণ: ০১ ফেব্র“য়ারি, ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দ

 প্রতিষ্ঠা ও নামকরণ:


প্রমথ নাথ রায় চৌধুরী

 ৩ এপ্রিল, ১৮৮০ খ্রিস্টাব্দে কতিপয় শিক্ষানুরাগী ও সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী টাঙ্গাইলের একটি মাইনর স্কুলকে হাই স্কুলে উন্নীত করেন এবং ময়মনসিংহ জেলার তদানীন্তন জেলা প্রশাসক গ্রাহাম সাহেবের নামে গ্রাহাম ইংলিশ হাই স্কুল নামকরণ করেন। প্রায় পাঁচ বছর বিদ্যালয়টি অর্থসংকটের ভেতর দিয়ে পরিচালিত হয়। গ্রাহাম ইংলিশ হাই স্কুল কর্তৃক আর্থিক সুবিধার জন্য টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীর কীর্তিমান জমিদার মরহুম নবাব বাহাদুর নওয়াব আলী চৌধুরী সাহেবের হাতে স্কুলটি অর্পণ করেন। কিন্তু তিনি মাত্র দুই বছর এই স্কুল পরিচালনার ব্যয়ভার বহন করেন।

তদ্পর ১৮৮৭ খ্রিস্টাব্দে টাঙ্গাইলের সন্তোষের অন্যতম ভূম্যধিকারিণী স্বর্গীয়া বিন্দুবাসিনী চৌধুরানী বিদ্যালয় পরিচালনার ব্যয়ভার গ্রহণ করেন।

  মন্মথ নাথ রায় চৌধুরী

  এতে সন্তুষ্ট হয়ে টাঙ্গাইলের সন্তোষের পাঁচ আনা অংশের জমিদার ভাতৃদ্বয় প্রমথ নাথ রায় চৌধুরী ও মন্মথ নাথ রায় চৌধুরী তাঁদের স্বর্গীয়া মাতা বিন্দুবাসিনী চৌধুরানীর নামে বিদ্যালয়টি বিন্দুবাসিনী হাই স্কুল নামে নামকরণ করেন এবং বর্তমান বিদ্যালয়, উদ্যান, নিউ মার্কেটসহ ছাত্রাবাস ও স্টেডিয়াম সংলগ্ন পুকুরের জায়গা বিদ্যালয়ের নামে দান করেন। ১৯১০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত তিনি এ বিদ্যালয়ের ব্যয়ভার বহন করেন এবং ঐ সনে তা ট্রাস্ট সম্পত্তি রূপে সরকারের নিকট সমর্পণ করেন। ৩১ জানুয়ারি ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বিদ্যালয়টি সরকারের অর্থ সাহায্যে পরিচালিত হয়ে আসছিল। ১ ফেব্র“য়ারি ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দে বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ করা হয়। বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই পাক-ভারত উপমহাদেশে শিক্ষা বিস্তারের ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রেখে আসছে। সন্তোষের জমিদার ভ্রাতৃদ্বয় প্রমথ নাথ রায় চৌধুরী ও মন্মথ নাথ রায় চৌধুরীসহ যে সব মহানুভব দূরদৃষ্টি সম্পন্ন ব্যক্তি সেই তমসাচ্ছন্ন যুগে ইংরেজি শিার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে এই বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তাঁরা আমাদের নমস্য, সম্মানীয়, কৃতজ্ঞচিত্তে আমরা আজ তাঁদের স্মরণ করি।

স্বাধীনতা যুদ্ধে বিন্দুবাসিনী সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় :

মার্চ ১৯৭১, বিন্দুবাসিনী স্কুল ময়দানে জয়বাংলা বাহিনীর সমাপনী কুচকাওয়াজ
ডিসেম্বর ১৯৭১। টাঙ্গাইল মুক্তিবাহিনী মুখপাত্র ‘রণাঙ্গণ’ এর কর্মকর্তাবৃন্দ
বা থেকে দাঁড়ানো কবি মাহবুব সাদিক, কবি রফিক আজাদ, মোঃ সোহরোয়াদী, নূরুল ইসলাম সৈয়দ (প্রকাশক) আনোয়ারুল আলম শহীদ (সম্পাদক), ফারুক আহম্মেদ (সহ-সম্পাদক), সহকর্মী জসিম ও আজিজ বাঙ্গাল।

জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয়ের গৌরব অর্জন :
শিক্ষা বিস্তারে অসামান্য অবদান, সন্তোষজনক ফলাফল লাভ, সুনাম, খেলাধূলা, সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড, স্কাউটিং কার্যক্রম, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সকল অনুষ্ঠানে স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহণ ও সাফল্য অর্জনের স্বীকৃতি স্বরূপ ১৯৯৬ খ্রিস্টাব্দে ঐতিহ্যবাহী বিন্দুবাসিনী সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, টাঙ্গাইলকে জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা দেওয়া হয় এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক পুরস্কৃত করা হয়।

অবকাঠামোগত তথ্যঃ
ভবন- ১     :    প্রশাসনিক ভবনঃ প্রধান শিকের ক, সহকারী প্রধান শিকের ক (প্রভাতী ও দিবা), অফিস ক, শিক্ষক মিলনায়তন, সভাকক্ষ, আই.সি.টি কম্পিউটার ল্যাব এবং পাঠাগার।
ভবন- ২     :    একাডেমিক ভবন- ১
ভবন- ৩     :    একাডেমিক ভবন- ২
ভবন- ৪     :    একাডেমিক ভবন- ৩
ভবন- ৫     :    বিজ্ঞান ভবন
ভবন- ৬     :    মাল্টিপারপাস ভবন
ভবন- ৭     :    ছাত্রাবাস
ভবন- ৮     :    প্রধান শিকের বাসভবন
ভবন- ৯     :    বিদ্যালয় মসজিদ (দারুস সালাম জামে মসজিদ)
ছাত্র সংখ্যা তথ্য : বিদ্যালয়ে বর্তমানে ২টি শিফ্ট- প্রভাতি ও দিবা শিফ্টে শ্রেণী কার্যক্রম চালু আছে। প্রভাতী ও দিবা শিফ্ট মিলে বিদ্যালয়ের বর্তমান ছাত্র সংখ্যা ১৯০৬ জন।

স্কাউট :
১৯৬২ খ্রিস্টাব্দে সাবডিভিশনাল র‌্যালিতে আমাদের স্কাউট দল চ্যাম্পিয়নশীপ অর্জন করে। ১৯৬৬ ও ১৯৬৭ খ্রিস্টাব্দে সাবডিভিশনাল র‌্যালিতে বিভিন্ন বিষয়ে দুটি পুরস্কার পায়। ১৯৬৩ খ্রিস্টাব্দে বিদ্যালয়ের স্কাউটার আনোয়ারুল আলম শহীদ (সাবেক সচিব ও রাষ্ট্রদূত) গ্রীসে বিশ্ব স্কাউট জাম্বুরীতে অংশগ্রহণ করে বিশেষ কৃতিত্ব অর্জন করেন।

খেলাধূলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের সাফল্যঃ

খেলাধূলা, স্কাউটিং ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে এই বিদ্যালয়ের রয়েছে ঈর্ষান্বিত সাফল্য। স্বনামধন্য এই বিদ্যালয় ১৯৯৫ খ্রিস্টাব্দে ১৩তম ও ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দে ১৭তম জাতীয় স্কুল ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।



  •   ডাকঘর: টাঙ্গাইল, উপজেলা- টাঙ্গাইল, জেলা- টাঙ্গাইল। স্থাপিত-১৮৮০ খ্রিস্টাব্দ, জাতীয়করণ-১৯৭০ খ্রিস্টাব্দ বিদ্যালয় কোড : ৪৫০০, ই আই এন : ১১৪৬৮০, ফোন : ০৯২১-৬৩৪১৪,
  •   ০১৭১৬******
  • tangailcalling@yahoo.com

ফটো গ্যালারি